Welcome to beautiful natore || natore || natore, rajshai || Historical Place of Bangladesh || নাটোর || নাটোর, রাজশাহী, বাংলাদেশ || rani bhabani || Natore Rajbari || Dighapatia Rajbari || Uttara Ganabhaban || Chalan Beel || Banalata Sen
আজ বুধবার, ৭ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ দুপুর ১২:৫৮



খুবজীপুর (চলনবিল) যাদুঘর


নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলার খুবজিপুর গ্রামে অবস্থিত খুবজিপুর (চলনবিল) জাদুঘর। চলনবিলে প্রাপ্ত নানা নিদর্শন, মাছ ধরার বিভিন্ন সরঞ্জাম ছাড়াও এখানে আছে অনেক দুর্লভ সংগ্রহ।

১৯৭৮ সালে চলনবিল অঞ্চলের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি সংরক্ষণের লক্ষ্যে অধ্যক্ষ প্রফেসর মরহুম আবদুল হামিদ স্থানীয় উদ্যোগীদের সহায়তায় নাটোর জেলা সদর থেকে প্রায় ৩০ কিমি. পূর্ব-দক্ষিণ ও বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের কাছিকাটা থেকে ১০ কি.মি. উত্তর-পশ্চিম দিকে জেলার গুরুদাসপুর উপজেলা সদর থেকে ৫/৬ কিলোমিটার দূরে খুবজীপুরে গ্রামে ৮ শতক জায়গায় চলনবিল জাদুঘরটি স্থাপন করেন। সেই সঙ্গে এ অঞ্চলের মানুষের কাছে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা চলনবিল তথা উপমহাদেশের অনেক দুর্লভ নিদর্শন সংগ্রহ করে আনা হয় এ জাদুঘরে।

পরবর্তীতে জাদুঘরটি উন্নয়নের লক্ষ্যে নরওয়ে সরকারের প্রজেক্ট নরওয়ে এজেন্টি (নোরাট) ১ লাখ ২০ হাজার টাকা অনুদানে জাদুঘরের পাকা দোতলা ভবন নির্মাণ করা হয়। ১৯৯০ সালে জাদুঘরটির দায়িত্ব বাংলাদেশ সরকারের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ গ্রহন করে।

জাদুঘরের প্রবেশ পথেই রয়েছে চলনবিলের কৃতী সন্তান প্রখ্যাত ঐতিহাসিক স্যার যদুনাথ সরকারের পোড়া মাটির আবক্ষ মূর্তি। এছাড়াও সংগৃহীত দুর্লভ নিদর্শনের মধ্যে রয়েছে বাদশা নাসিরুদ্দিন ও মোঘল সম্রাট আলমগীরের স্বহস্তে লিখিত কোরআন শরীফ, তুলট কাগজ ও গাছের ছালে লেখা প্রাচীন ও মধ্যযুগের পুঁথির পান্ডুলিপি। বিভিন্ন সময়ের স্বর্ণ, রৌপ্য, তাম্র, ধাতব মুদ্রা, বিভিন্ন ধরনের প্রস্তর ও পোড়ামাটির ভাস্কর্য, রাজা, সম্রাট, সুলতান ও নবাবদের ব্যবহৃত তলোয়ারসহ বিভিন্ন যুদ্ধাস্ত্র, রানী ভবানীর স্মৃতি চিহ্ন, মনসা মঙ্গলের বেদি ও ঘট, হাতির দাঁত, গাছের ছালের উপর সংস্কৃত ভাষায় পান্ডুলিপি, ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধে ব্যবহৃত বুলেট, ৩টি মাথাযুক্ত বাঁশ গাছ, বাংলা ভাষায় লিখিত অতি পুরাতন পান্ডুলিপি, বাংলাদেশের প্রথম সংবিধান, শ্রী বরদা প্রসাদ শাস্ত্রীর কাল পাথরের প্রতিকৃতি, ব্রোঞ্জের তৈরী মুর্তি, ৮০টি দেশের মুদ্রা সহ আরো প্রাচীণ উপকরণ রয়েছে। বগুড়ার কবি মরহুম রুস্তম আলী কর্নপুরীর দলিল-দস্তাবেজ ও উপমহাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সংগৃহীত ঐতিহাসিক নিদর্শন।

প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের ১জন স্থায়ী কেয়ারটেকার ও ২জন মাষ্টাররোলে নিয়োগকৃত গার্ড/শ্রমিক এই জাদুঘরের দেখাশুনার কাজে নিয়োজিত আছেন।

নাটোর থেকে বাসে গুরুদাসপুর উপজেলায় এসে সেখান থেকে নদী পার হয়ে রিকশায় আসা যাবে খুবজিপুর গ্রামের এ জাদুঘরে। শনিবার জাদুঘরটি বন্ধ থাকে।





অনলাইনে আছেন
২ জন অতিথী

সর্বমোট দেখা হয়েছে
১৯৩৬১৭ বার।
© সর্বসত্ত্ব সত্ত্বাধিকার ২০১২ আমাদের নাটোর ডট কম
ceyhan haber,ceyhan sondakika,ceyhan radyo televizyon,crt haber,crt canli yayin,crt radyo